Responsive Menu
Add more content here...

বিটকয়েন কি, এবং কোন কোন দেশে বিটকয়েন অবৈধ এবং বৈধ।

আসসালামু আলাইকুম দর্শক।আশা করি সবাই ভাল আছেন। আজকে আমরা আলোচনা করতে যাচ্ছি বিটকয়েন সম্পর্কে। এ সম্পর্কে যারা জানতে আগ্রহী তারা অবশ্যই সম্পূর্ণ ব্লগটি পড়বেন। চলুন শুরু করা যাক বিটকয়েন সম্পর্কিত তথ্য। বিটকয়েন হল একটি বিকেন্দ্রীভূত ডিজিটাল মুদ্রা যা 2008 সালে সাতোশি নাকামোটো নাম ব্যবহার করে একজন বেনামী ব্যক্তি বা ব্যক্তিদের গোষ্ঠী দ্বারা উদ্ভাবিত হয়েছিল।এটি 2009 সালে একটি ওপেন সোর্স সফ্টওয়্যার প্রকল্প হিসাবে চালু করা হয়েছিল।

bitcoin

বিটকয়েন একটি পিয়ার-টু-পিয়ার নেটওয়ার্কে কাজ করে, যার অর্থ ব্যাঙ্কের মতো মধ্যস্থতাকারীর প্রয়োজন ছাড়াই সরাসরি ব্যবহারকারীদের মধ্যে লেনদেন হয়।এর মূলে, বিটকয়েন হল ডিজিটাল অর্থের একটি রূপ যা নিরাপদ, দ্রুত এবং কম খরচে লেনদেন করতে সক্ষম করে। এটি লেনদেন সুরক্ষিত এবং যাচাই করতে এবং নতুন ইউনিট তৈরি নিয়ন্ত্রণ করতে ক্রিপ্টোগ্রাফিক কৌশল ব্যবহার করে। 

বিটকয়েন লেনদেনগুলি ব্লকচেইন নামে একটি পাবলিক লেজারে রেকর্ড করা হয়, যা মাইনার হিসাবে পরিচিত কম্পিউটারগুলির একটি বিকেন্দ্রীকৃত নেটওয়ার্ক দ্বারা রক্ষণাবেক্ষণ করা হয়।

বিটকয়েনের মূল বৈশিষ্ট্যগুলির মধ্যে রয়েছে:

১। বিকেন্দ্রীকরণ: বিটকয়েন কোনো কেন্দ্রীয় কর্তৃপক্ষ দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয় না,

যেমন একটি সরকার বা আর্থিক প্রতিষ্ঠান। এই বিকেন্দ্রীকৃত প্রকৃতি এটিকে সেন্সরশিপ এবং ম্যানিপুলেশন প্রতিরোধী করে তোলে।

২। সীমিত সরবরাহ: অস্তিত্বে শুধুমাত্র 21 মিলিয়ন বিটকয়েন থাকবে।

এই ঘাটতি বিটকয়েন প্রোটোকলের মধ্যে প্রোগ্রাম করা হয়েছে, এবং এর অর্থ হল বিটকয়েন প্রথাগত ফিয়াট মুদ্রার মতো মুদ্রাস্ফীতির অধীন নয়।

৩। নিরাপত্তা: বিটকয়েন উন্নত ক্রিপ্টোগ্রাফিক কৌশল ব্যবহার করে লেনদেন সুরক্ষিত করতে এবং নতুন ইউনিট তৈরি নিয়ন্ত্রণ করে।

ব্লকচেইন প্রযুক্তি লেনদেন রেকর্ডের স্বচ্ছতা এবং অপরিবর্তনীয়তা নিশ্চিত করে।

৪। নাম প্রকাশ না করা এবং স্বচ্ছতা: ব্লকচেইনে বিটকয়েন লেনদেন রেকর্ড করা হলেও অংশগ্রহণকারীদের পরিচয় ছদ্মনাম।

See also  ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকার মধ্যে ভালো মানের ৫ টি স্মার্টফোন ২০২৩।

যাইহোক, এটি লক্ষ করা গুরুত্বপূর্ণ যে বিটকয়েন লেনদেনগুলি কিছু পরিমাণে সনাক্ত এবং বিশ্লেষণ করা যেতে পারে।

৫। বিনিয়োগের সম্ভাবনা: বিটকয়েন একটি অনুমানমূলক সম্পদ হিসাবে উল্লেখযোগ্য মনোযোগ অর্জন করেছে, অনেক লোক লাভের আশায় এতে বিনিয়োগ করে।

এর মান বছরের পর বছর ধরে উল্লেখযোগ্য অস্থিরতা অনুভব করেছে, দ্রুত বৃদ্ধির সময়কালের সাথে উল্লেখযোগ্য মূল্যের ওঠানামা হয়েছে।

৬। বিটকয়েন হাজার হাজার অন্যান্য ক্রিপ্টোকারেন্সির উন্নয়নে অনুপ্রাণিত করেছে, যা সম্মিলিতভাবে অল্টকয়েন নামে পরিচিত।

এই ডিজিটাল মুদ্রাগুলি প্রায়শই একই বৈশিষ্ট্যগুলি ভাগ করে তবে নির্দিষ্ট পার্থক্য বা ব্যবহারের ক্ষেত্রে থাকতে পারে।

বিটকয়েন যেভাবে কাজ করে:

বিটকয়েনের লেনদেন হয় প্রেরক থেকে সরাসরি প্রাপকের কম্পিউটারে অনলাইনের ভিত্তিতে। বিটকয়েন মূলত ব্লকচেইন পদ্ধতিতে কাজ করে।

অনলাইনের ভিত্তিতে লেনদেন গুলি সত্যাখ্যান করা হয় ক্রিপটোগ্রাফির মাধ্যমে এবং প্রকাশ্যে লিপিবদ্ধ করা হয় যা সকলের কাছে বিতড়িত হয়।

এই প্রক্রিয়াকে ব্লকচেইন প্রক্রিয়া বলে। এই ব্লকচেইন এর উপর পুরো বিটকয়েন নেটওয়ার্ক নির্ভর করে।

এই ব্লকচেইন প্রক্রিয়ায়ি বিটকয়েন দ্বারা লেনদেন যাচাই করা হয়। লেনদেন থেকে কত বিটকয়েন উৎপাদিত হবে তা প্রতি চার বছর পর পর কমে যায়।

 ধারণা করা হয় ২১৪০ সালের পর আর কোন নতুন বিটকয়েন তৈরি হবে না।ধারণা করা হয় ২১৪০ সাল নাগাদ মোট বিট কয়েন দাঁড়াবে দুই কোটি ১০ লাখ।

বিটকয়েন তৈরির ইতিহাস:

১৮/০৮/২০০৮ সালে bitcoin. org ডোমেইন নাম নিবন্ধন করে। একই বছরের নভেম্বর মাসে সাতোশি নাকামোতো রচনাকারে বিটকয়েন কি ও এটি কীভাবে কাজ করে তা প্রকাশ করা হয়  metzdowd. com ওয়েবসাইটের মেইলিং লিস্টে।

 এক বছর পরে ২০০৯ সালে সাতোশি বিটকয়েনের সোর্সকোড উন্মুক্ত করে সোর্সফর্য নামে একটি প্লাটফর্মের মাধ্যমে । এই মাসে তারা বিটকয়েন নেটওয়ার্ক সম্প্রচার করে এবং সাতোশি ব্লকচেইনের সর্বপ্রথম ব্লক মাইন করে।

See also  শীর্ষ ১০ টি ডেস্কটপ সফ্টওয়্যার যা থাকা অনেক জরুরী।

 সর্বপ্রথম বিটকয়েনের লেনদেন করা হয়েছিল সাতোশি নাকামোতো এবং হাল ফিনি নামক এক ব্যক্তির সাথে। ঐ লেনদেনে সাতোশি ১০ টি বিটকয়েন দিয়ে থাকেন হান ফিনি নামক ব্যক্তিকে।

প্রথম বছরের মধ্যে প্রায় ১০ লক্ষ বিটকয়েন মাইন করা হয়েছিল ।

অতঃপর ২০১০ সালে সাতোশি নাকামোতো বিটকয়েন নেটওয়ার্ক কিই এবং বিটকয়েন কোর এর কোড রিপোজিটরির দখল

গ্যাভিন অ্যান্ড্রেসেন নামে এক ব্যাক্তি যিনি পেশায় একজন সফটওয়্যার ডেভেলপার ছিলেন তার কাছে হস্তান্তর করেন। 

এর পরেই গ্যাভিন অ্যান্ড্রেসেনকে বিটকয়েন ফাউন্ডেশোনের প্রধান ডেভেলপার হিসেবে পদপ্রাপ্ত করা হয়।

বৈধতা:

২০১৪ সালে বাংলাদেশ ব্যাংক বিটকয়েন লেনদেনকে অবৈধ বলে ঘোষণা করে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক সিরাজুল ইসলাম কর্তৃক ঘোষণা দেওয়া হয়েছে বাংলাদেশে বিটকয়েনের কোন অনুমোদন নেই।

অনুমোদন না থাকায়,এই লেনদেন অবৈধ। বাংলাদেশ ছাড়াও আরো অনেক দেশ আছে যেখানে বিটকয়েন অবৈধ।যেমন:

1. আলজেরিয়া: আলসারিয়ায় ২০১৮ সালের পর থেকে বিটকয়েন লেনদেন অবৈধ হিসাবে গণ্য।

2. বলিভিয়া: ২০১৪ সাল থেকে বলিভিয়ায় বিটকয়েন লেনদেন একেবারে নিষিদ্ধ।

3. চীন: চীনে ২০২১ সাল জুড়ে ক্রমবর্ধমান তীব্রতার সাথে ক্রিপ্টোকারেন্সির উপর ক্র্যাক ডাউন করা হয়েছে।

3. মিশর:মিশর একটি ইসলামপ্রধান দেশ।আর ইসলামে বিটকয়েন লেনদেন হারাম হিসেবে প্রচলিত।তাই বিটকয়েন লেনদেন মিশরে নিষিদ্ধ।

4. ইন্দোনেশিয়া: ২০১৮ সালের 1জানুয়ারি হতে ইন্দোনেশিয়ায় বিটকয়েন লেনদেন নিষিদ্ধ।

5. উত্তর ম্যাসিডোনিয়া: উত্তর ম্যাচে ইউরোপের একমাত্র এমন একটি দেশ যেখানে বিটকয়েন এর উপর আনুষ্ঠানিক নিষেধাজ্ঞা রয়েছে।

6. তুরস্ক: তুরস্ক প্রজাতন্ত্রের সেন্ট্রাল ব্যাংক ২০১১ সালে একটি প্রবিধান জারি করে যাতে বিটকয়েনসহ সকল ক্রিপ্টোকারেন্সি ব্যবহার নিষিদ্ধ করা হয়।

বিভিন্ন দেশে বিটকয়েন আবার বৈধ হিসেবে পরিগনিত. যেমন:

1. যুক্তরাষ্ট্র:যুক্তরাষ্ট্রের বিটকয়েন লেনদেন বৈধ। ইউনাইটেড স্টেটস ফাইন্যান্সিয়াল ক্রাইম ইনফোর্সমেন্ট নেটওয়ার্ক ২০১৩ সাল থেকে বিটকয়েন সম্পর্কে দিকনির্দেশনা দিয়ে আসছে।

এটি যুক্তরাষ্ট্রের বিটকয়েন লেনদেন বৈধ করে।

See also  তবে কী ক্ষয়ে যাচ্ছে শনির বলয়?

2. কানাডা:কানাডায় বিটকয়েন লেনদেন বৈধ। দেশটির ব্যবসায়িক আই হিসেবে বিটকয়েন কে ব্যবহার করে।

3. ইউরোপ: ইউরোপে ক্রিপ্টোকারেন্সিকে বৈধ হিসেবে গণ্য করা হয়।তাই সেখানে বিটকয়েন লেনদেন বৈধ।

4. অস্ট্রেলিয়া: ইউরোপ, আমেরিকা কানাডা সহ অস্ট্রেলিয়ায় ও বিটকয়েন লেনদেন বৈধ।

বিটকয়েন এমন একটি ডিজিটাল মুদ্রা

যার বাজার মূল্য দিন দিন বেড়েই যাচ্ছে. এবং এর মূল্য দিন দিন তথা ভবিষ্যতে না কমে বেড়েই যাবে।

##আর্টিকেলটির শেষ কথা: আর্টিকেলটি দ্বারা আমরা জানতে পারলাম বিটকয়েন কি?,বিটকয়েন তৈরির ইতিহাস। 

পাশাপাশি আমরা এটাও জানতে পারলাম বিটকয়েন কোন কোন দেশে বৈধ এবং বিটকয়েন কোন কোন দেশে অবৈধ।

যাইহোক বন্ধুরা আজকের আর্টিকেলটি ভালো লাগলে নিচে কমেন্ট

এবং অন্যদের সাথে শেয়ার করতে ভুলবেন না। ব্লগটি সম্পন্ন করার জন্য সকলকে জানাই আন্তরিক ধন্যবাদ।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top