Responsive Menu
Add more content here...

ফোনের গতি বাড়ানোর কিছু সহজ কৌশল।

ফোনের গতি বাড়ানোর কিছু সহজ কৌশল

আজকের এই আধুনিক বিশ্বে স্মার্টফোন আমাদের দৈনন্দিন জীবনের একটি অপরিহার্য অংশ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

সময়ের সাথে সাথে এর জনপ্রিয়তা ক্রমেই বেড়ে চলেছে। যোগাযোগ বিনোদন এমনকি  ইনকামের জন্যও আমরা

ফোনের উপর নির্ভর করে থাকি। যাইহোক আপনি  যদি একটি ফোন কিনেন সেটি  সময়ের সাথে সাথে ধীর হবে এটাই

স্বাভাবিক যা হতাশজনক। আপনি যদি আপনার ফোনের গতি বাড়াতে চান তাহলে এই আর্টিকেলটি আপনার জন্য।

এখানে আমরা কয়েকটি সহজ কৌশল অবলম্বন করে আপনাকে ফোনের গতি বাড়িয়ে দেখাবো। তাহলে চলুন দেখে নেয়া যাক।

১। পরিচিতি

 বর্তমান ডিজিটাল যুগে স্মার্টফোনগুলি অত্যাধুনিক ডিভাইসে পরিণত হচ্ছে, যার মাধ্যমে বিস্তৃত পরিসরে কাজ সম্পাদন করা যায়।

কাজ সম্পাদন করার জন্য আমাদের অনেক অ্যাপ ইন্সটল করতে হয় তাছাড়া ডাটা জমা করতে হয় এর ফলে ফোনের গতি অনেক

কমে যায়। কয়েকটি সহজ কৌশল অনুসরণ করে আপনি আপনার ফোনের গতি আগের মত করতে পারেন।

২।  নিয়মিত ক্যাশ মেমোরি সাফ করা

একটি স্মার্ট ফোন ধীর হওয়ার একটি প্রধান কারণ হলো ক্যাশ মেমোরি  পরিষ্কার না করা। যখন একটি ফোনে অতিরিক্ত ক্যাশ ফাইল

জমা হয় তখন অ্যাপ গুলো দ্রুত লোড করতে পারে না, এবং এই ক্যাশ ধীরে ধীরে মেমোরির অনেক জায়গা কিংবা স্পেস নিতে

See also  বিশ্বের সেরা ১০ টি ব্রাউজার (২০২৩)

পারে। আপনি যদি নিয়মিত প্রয়োজনীয় ফাইল মুছে ফেলতে পারেন এবং মেমোরি খালি রাখতে পারেন তাহলে আপনার ফোনের

কর্ম ক্ষমতা উন্নত হবে এবং অনেক দ্রুত হবে তাই নিয়মিত ক্যাশ মেমোরি পরিষ্কার রাখুন।

৩। অপ্রয়োজনীয় অ্যাপ আনইনস্টল করুন

আপনার স্মার্টফোনের গতি বাড়ানোর আরেকটি কার্যকরী উপায় হল অপ্রয়োজনীয় অ্যাপ আনইন্সটল করা। অনেক সময়

আমরা এমন সব অ্যাপ ডাউনলোড করি যা আমাদের সব সময় দরকার হয় না বলা চলে খুবই কম ব্যবহার করি। এই অ্যাপগুলো

শুধুমাত্র স্টোরেজের স্পেসি নয় বরং ব্যাকগ্রাউন্ড সিস্টেম রিসোর্স ব্যবহার করে। এর ফলে আপনার ফোনটি অনেক দীর্ঘদিন হয়ে যায়।

তাই আপনার দরকার যে সব অ্যাপস আপনি ব্যবহার করেন না সেগুলো দ্রুতই আনইন্সটল করে আপনার ফোন অপটিমাইজ করা।

৪।  আপনার অপারেটিং সিস্টেম আপডেট করুন

আপনি যদি আপনার ফোনের সর্বোচ্চ পারফরমেন্স পেতে চান তাহলে আপনার অপারেটিং সিস্টেম সর্বদা আপটুডেট রাখবেন। ফোন কোম্পানি

নিয়মিত আপডেট প্রকাশ করে যার মধ্যে বাগ ফিক্সড সিকিউরিটি প্যাচ এবং পারফরমেন্স  উন্নতিকরন রয়েছে। এর ফলে আপনার ফোন শুধু দ্রুত

গতিরই হবে না এর ফলে আপনার ফোন সিকিউরিটির দিক থেকে অনেক উন্নত থাকবে যা বর্তমান দুনিয়ায় অনেক গুরুত্বপূর্ণ একটা বিষয়।

৫।  ব্যাকগ্রাউন্ড প্রসেস সীমিত করুন

ব্যাকগ্রাউন্ড রানিং অ্যাপস গুলো একটি ফোনের পারফরম্যান্স অনেক কমিয়ে দিতে পারে। আপনি যদি একটি ফোনের গতি নতুন ফোনের ন্যায়

রাখতে চান তাহলে ব্যাকগ্রাউন্ড অ্যাপস গুলোর উপর কর্তৃত রাখুন। এই ব্যাকগ্রাউন্ড  অ্যাপস আপনি নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন সেটিং মেনুতে গিয়ে।

আপনি অপ্রয়োজনীয় সকল অ্যাপস ব্যাকগ্রাউন্ড থেকে রিমুভ করে দিবেন এর ফলে আপনার ফোনের গতি অনেক দ্রুত হবে।

৬। অ্যানিমেশন এবং ট্রানজিশন নিষ্ক্রিয় করুন

অ্যানিমেশন এবং  ট্রানজিশন আপনার ফোনকে দৃষ্টিকটু বোধ করতে পারে কিন্তু  এগুলো যদি আপনি নিষ্ক্রিয় করেন তাহলে আপনার ফোনের

See also  জনপ্রিয় সেরা ৮ টি ওয়েবসাইট (২০২৩)।

গতি অনেক বেড়ে যাবে। এই ভিজুয়াল ইফেক্টিগুলোকে কমিয়ে বা নিষ্ক্রিয় করে আপনার ফোনের প্রসেসর লোড কমিয়ে আনতে পারেন এর ফলে

আপনার ফোনের পারফরম্যান্স অনেক উন্নত হবে বা অনেক গতিশীল হবে। অ্যানিমেশন যদি আপনি নিয়ন্ত্রণ করতে চান তাহলে আপনার

ফোনের ডেভলপার অপশন অন করতে হবে তাহলেই আপনি এটি সহজেই নিষ্ক্রিয় করতে পারবেন।

৭।  উইজেট এবং লাইভ ওয়ালপেপার সরান

উইজেট এবং লাইভ ওয়ালপেপার শান্ত মনে হতে পারে, কিন্তু তারা সিস্টেম সম্পদ গ্রাস করে, যা

  আপনার ফোনের গতি কমিয়ে দিতে পারে। আপনার হোম স্ক্রীন থেকে অপ্রয়োজনীয় উইজেটগুলি সরানোর এবং একটি স্ট্যাটিক ওয়ালপেপারে

স্যুইচ করার কথা বিবেচনা করুন। এই সহজ পদক্ষেপটি আপনার ফোনের সংস্থানগুলির উপর চাপ কমাতে এবং এর সামগ্রিক গতি বাড়াতে সাহায্য করতে পারে৷

 উইজেট এবং লাইভ ওয়ালপেপার এগুলো দেখে কম সিস্টেম কর্তন করে মনে হলেও এগুলো সিস্টেমের প্রায় অনেকটুকু জায়গা দখল করে রাখে।

  যার ফলে আপনার ফোন  অনেক নিম্নগতির হয়ে যায়। এর জন্য আপনি আপনার ফোনে লাইভ ওয়ালপেপার রিমুভ করে একটি স্ট্যাটিক

ওয়ালপেপার যুক্ত করুন। এর ফলে আপনার ফোনের সামগ্রিক গতি বাড়তে পারে।

৮।  লাইটওয়েট অ্যাপ ব্যবহার করুন

আপনার ফোন যদি একবারেই নিম্নগতির হয়ে যায় তখন  আপনি যদি আপনার ফোনের গতি বাড়াতে চান একটি কাজ করতে পারেন

সেটি হললাইট ওয়েট অ্যাপ ব্যবহার করুন। যেমন ফেসবুক লাইট ইমু লাইট ইত্যাদি। এগুলো মেইন অ্যাপ এর চেয়ে অনেক কম

এমবি এমনকি অনেক কম  ডাটা প্রসেস করে এগুলো কাজ করতে পারে। যার ফলে আপনার ফোন  দ্রুতগতির থাকবে এমন কি আপনি apps ও ব্যবহার করতে পারবেন

৯।  ফোন রিস্টার্ট করুন

আমাদের মাঝে এমন অনেক লোক আছে যারা ফোন রিস্টার্ট করে না। এর ফলে তাদের ফোন অনেক ধীর হয়ে যায়।

See also  ভ্রমণের জন্য সেরা পাঁচটি অ্যাপস ২০২৩।

আপনি যদি একটি ফোন রিস্টার্ট করেন তখন এর অনেক ক্যাশ ফাইল ও ডিলিট হয়ে যায় যা ফোনের জন্য অনেক উপকারী।

এর ফলের প্রসেসরও নতুন করে ভালোভাবেকাজ করে। আর ব্যাকগ্রাউন্ড অ্যাপস ও বন্ধ হয়ে যায়। সর্বোত্তম ফলাফলের

জন্য আপনি প্রতি সপ্তাহে অন্তত এক থেকে দুইবার ফোন রিস্টার্ট করবেন।

১০।  স্টোরেজ স্পেস পরিষ্কার করুন

আমাদের অনেকের ফোনেই এমন অনেক ফাইল ফটো ভিডিও ইত্যাদি আছে যা কোন প্রয়োজনই নেই। এটি ফোনের অনেক

স্পেস নষ্ট করে থাকে।আপনার ফোন যদি স্বাভাবিক গতি রাখতে চান তাহলে অবশ্যই আপনার ফোনের অপ্রয়োজনীয় ফাইল ফটো ভিডিও

ইত্যাদি ডিলিট করবেন। আর যদি ডিলেট করতে না চান তাহলে আলাদা একটি মেমোরি কার্ড কিনে সেখানে ফাইলগুলো

রাখবেন এতে আপনার ফোনের গতির দিক থেকে অনেক উন্নতি হবে।

১১।  অব্যবহৃত সংযোগ বৈশিষ্ট্য নিষ্ক্রিয় করুন

আমাদের ফোনে অনেক সময় ব্লুটুথ এনএফসি ওয়াইফাই ইত্যাদি বৈশিষ্ট্য সব সময় চালু থাকে। এর ফলে যেমন ফোনের ব্যাটারি

দ্রুত কমে যায় পাশাপাশি ফোনের স্বাভাবিক গতি ও থাকেনা। আপনাদের যদি এগুলো ব্যবহার করতে না হয় তাহলে অবশ্যই এগুলো

অফ রাখবেন এতে করে আপনার ফোনের ব্যাটারির সাথে সাথে পারফরম্যান্স ভালো পাবেন বলে আশা করা যায়। আপনি আপনার

ফোনের এসব বন্ধের মাধ্যমে ফোনের উপর চাপ কমাতে পারেন।

১২। অ্যাপ বিজ্ঞপ্তিগুলি হ্রাস করুন

ক্রমাগত এক বিজ্ঞপ্তির কারণে আপনার ফোনের কার্যক্ষমতা অনেক অংশে কমে যেতে পারে। তাই আপনি দেখুন কোন অ্যাপস

গুলো থেকে বেশি বিজ্ঞপ্তি আসে তারপর সেই অ্যাপসগুলোর সেটিং এ গিয়ে বিজ্ঞপ্তির অপশনটি বন্ধ রাখুন। এই পদক্ষেপটি আপনার

ফোনের জন্য অনেক  উপকারী হতে পারে এমনকি গতির অনেক অপটিমাইজ হবে।

১৩।  উপসংহার

উপসংহারে, আপনার ফোনের গতি বাড়ানোর জন্য আপনি বেশ কয়েকটি সহজ কৌশল প্রয়োগ করতে পারেন। নিয়মিত ক্যাশে সাফ

করে, অপ্রয়োজনীয় অ্যাপ আনইনস্টল করে, আপনার অপারেটিং সিস্টেম আপডেট করে, এবং ব্যাকগ্রাউন্ড প্রসেস সীমিত করে,

আপনি আপনার ফোনের কর্মক্ষমতা অপ্টিমাইজ করতে পারেন।

 অতিরিক্তভাবে, অ্যানিমেশনগুলি অক্ষম করা, উইজেটগুলি সরানো এবং লাইটওয়েট অ্যাপ ব্যবহার করা এর গতি আরও বাড়িয়ে তুলতে পারে।

মনে রাখবেন আপনার ফোন নিয়মিত রিস্টার্ট করুন, স্টোরেজ স্পেস সাফ করুন এবং আপনার প্রয়োজন অনুসারে আপনার সেটিংস

কাস্টমাইজ করুন। এই টিপসগুলি অনুসরণ করে, আপনি একটি দ্রুত এবং আরও প্রতিক্রিয়াশীল স্মার্টফোন অভিজ্ঞতা উপভোগ  করতে পারেন।

প্রায়শই জিজ্ঞাসিত প্রশ্নাবলী (FAQs)

[sp_easyaccordion id=”543″]

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top