Responsive Menu
Add more content here...

মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।

সুপ্রিয় দর্শক বন্ধুরা আশা করি আপনারা সবাই ভাল আছেন। আজ আপনাদের জন্য নিয়ে এলাম বাংলাদেশের বিখ্যাত একটি বিশ্ববিদ্যালয়, যার নাম মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।এই ব্লগের মাধ্যমে আপনারা জানতে পারবেন মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় সম্পর্কে। তাহলে জেনে নেয়া যাক এর সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য।

মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।

 মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়টির ইতিহাসঃ

মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (MBSTU) এর ইতিহাস 1999 সালে প্রতিষ্ঠার সময় থেকে। এখানে এর ইতিহাস এবং মূল মাইলফলকগুলির একটি বিশদ বিবরণ রয়েছে:

1. প্রতিষ্ঠাঃ

এমবিএসটিইউ বাংলাদেশে একটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় হিসাবে 12 এপ্রিল, 1999 সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় আইনটি

বাংলাদেশের সংসদে পাস হয়, যা বিশ্ববিদ্যালয়টিকে আনুষ্ঠানিকভাবে স্বীকৃতি দেয় এবং এটিকে একাডেমিক ও প্রশাসনিক বিষয়ে স্বায়ত্তশাসন প্রদান করে।

2. ভিশন এবং মিশনঃ

বিজ্ঞান, প্রকৌশল এবং প্রযুক্তিতে মানসম্পন্ন শিক্ষা প্রদানের লক্ষ্যে বিশ্ববিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। MBSTU এর লক্ষ্য হল দক্ষ পেশাদার এবং গবেষক

তৈরি করা যারা বৈজ্ঞানিক উদ্ভাবন এবং প্রযুক্তিগত অগ্রগতির মাধ্যমে জাতীয় উন্নয়নে অবদান রাখতে পারে।

3. প্রতিষ্ঠাতা চ্যান্সেলর এবং ভাইস-চ্যান্সেলরঃ

প্রয়াত অধ্যাপক ড. এ.এস.এম. সালাহউদ্দিন এমবিএসটিইউ-এর প্রতিষ্ঠাতা চ্যান্সেলর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা উপাচার্য হিসেবে নিয়োগ পান প্রফেসর ড.

See also  এইচএসসি ২০২৩ ফল প্রকাশের সম্ভাব্য সময় প্রকাশ

4. বিশ্ববিদ্যালয়ের নামকরণঃ

বিশ্ববিদ্যালয়ের নামকরণ করা হয়েছিল মাওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানীর নামে, যিনি একজন অত্যন্ত শ্রদ্ধেয় রাজনৈতিক নেতা, সমাজ

সংস্কারক এবং বাংলাদেশের দরিদ্রদের চ্যাম্পিয়ন। “মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়” নামটি জাতির জন্য তার অবদানকে সম্মান করার অঙ্গীকার প্রতিফলিত করে।

5. প্রাথমিক একাডেমিক প্রোগ্রামঃ

যখন MBSTU প্রতিষ্ঠিত হয়, তখন এটি চারটি মূল প্রকৌশল শাখায় স্নাতক প্রোগ্রাম দেওয়া শুরু করে কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং,

ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং, সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং এবং টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং। বাংলাদেশে প্রকৌশলীদের ক্রমবর্ধমান চাহিদা মোকাবেলার জন্য এই প্রোগ্রামগুলি ডিজাইন করা হয়েছিল।

6. প্রারম্ভিক বছর এবং সম্প্রসারণঃ

MBSTU এর প্রারম্ভিক বছরগুলিতে, তার অবকাঠামো, অনুষদ নিয়োগ, এবং পাঠ্যক্রম বর্ধিতকরণের উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে। বিশ্ববিদ্যালয়ের

বৃদ্ধির সাথে সাথে, একাডেমিক অফারগুলিকে বৈচিত্র্যময় করার জন্য এবং আরও বিস্তৃত শৃঙ্খলা পূরণের জন্য নতুন অনুষদ এবং বিভাগগুলি প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।

7. অনুষদ এবং প্রোগ্রাম সম্প্রসারণঃ

MBSTU বিজ্ঞান অনুষদ অন্তর্ভুক্ত করার জন্য তার একাডেমিক কাঠামো প্রসারিত করেছে, যা গণিত, পদার্থবিদ্যা, রসায়ন এবং

পরিসংখ্যানে প্রোগ্রাম অফার করে। উপরন্তু, বিজনেস স্টাডিজ অনুষদ প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল, যা অ্যাকাউন্টিং, ফিনান্স, ম্যানেজমেন্ট এবং মার্কেটিং-এ প্রোগ্রাম অফার করে।

8. গবেষণা এবং উদ্ভাবনঃ

এমবিএসটিইউ সবসময়ই তার একাডেমিক সংস্কৃতির গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হিসেবে গবেষণা এবং উদ্ভাবনের ওপর জোর দিয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়টি

অনুষদ এবং শিক্ষার্থীদের গবেষণা কার্যক্রমে জড়িত হতে উৎসাহিত করে, যা বিভিন্ন ক্ষেত্রে অগ্রগতির দিকে পরিচালিত করে এবং জাতীয় উন্নয়নে অবদান রাখে।

9. অবকাঠামোগত উন্নয়নঃ

বছরের পর বছর ধরে, MBSTU এর ক্রমবর্ধমান ছাত্র জনসংখ্যা এবং একাডেমিক চাহিদা সমর্থন করার জন্য অবকাঠামো উন্নয়নে বিনিয়োগ

করেছে। ক্যাম্পাসে আধুনিক একাডেমিক ভবন, সুসজ্জিত পরীক্ষাগার, একটি কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার, প্রশাসনিক অফিস, একটি অডিটোরিয়াম এবং ছাত্র ছাত্রাবাস রয়েছে।

See also  স্কুলের বেতন মওকুফের জন্য প্রধান শিক্ষকের নিকট আবেদন

10. স্বীকৃতি এবং স্বীকৃতিঃ

MBSTU বিভিন্ন সংস্থা এবং সংস্থার কাছ থেকে স্বীকৃতি এবং স্বীকৃতি পেয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়টি অ্যাসোসিয়েশন অফ কমনওয়েলথ ইউনিভার্সিটিজ

(ACU) এর সদস্য এবং দেশের উচ্চ শিক্ষার নিয়ন্ত্রক সংস্থা ইউনিভার্সিটি গ্রান্ট কমিশন অফ বাংলাদেশ (UGC) দ্বারা স্বীকৃত।

একাডেমিক অনুষদ এবং প্রোগ্রামঃ

এমবিএসটিইউ বিভিন্ন অনুষদ নিয়ে গঠিত যা বিস্তৃত স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর প্রোগ্রামগুলি অফার করেঃ

1. প্রকৌশল অনুষদঃ এই অনুষদে কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং, ইলেকট্রিক্যাল এবং ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং, সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং, মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং এবং

টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং সহ বিভিন্ন বিভাগ রয়েছে। অনুষদটি শিক্ষার্থীদের ব্যবহারিক জ্ঞান এবং দক্ষতা প্রদানের জন্য নিবেদিত, তাদের নিজ নিজ ক্ষেত্রে সফল ক্যারিয়ারের জন্য প্রস্তুত করা।

2. বিজ্ঞান অনুষদঃ বিজ্ঞান অনুষদ গণিত, পদার্থবিদ্যা, রসায়ন এবং পরিসংখ্যানের মতো বিভাগগুলিকে অন্তর্ভুক্ত করে।

এটি বৈজ্ঞানিক অনুসন্ধান, সমালোচনামূলক চিন্তাভাবনা এবং বিশ্লেষণাত্মক ক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য ডিজাইন করা স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর প্রোগ্রাম অফার করে।

3. বিজনেস স্টাডিজ অনুষদঃ এই অনুষদ অ্যাকাউন্টিং, ফিনান্স, ম্যানেজমেন্ট এবং মার্কেটিং এর প্রোগ্রাম অফার করে। এটি শিক্ষার্থীদের ব্যবসায়িক নীতি,

কৌশলগত চিন্তাভাবনা এবং কর্পোরেট বিশ্বে প্রয়োজনীয় সিদ্ধান্ত গ্রহণের দক্ষতায় একটি শক্তিশালী ভিত্তি দিয়ে সজ্জিত করার উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে।

4. মানবিক ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদঃ এই অনুষদে ইংরেজি, বাংলা (বাংলা), অর্থনীতি এবং সমাজবিজ্ঞানের মতো বিভাগ রয়েছে। ছাত্রদের মধ্যে সমালোচনামূলক

চিন্তাভাবনা, কার্যকর যোগাযোগ এবং সামাজিক সচেতনতা বৃদ্ধির সাথে সাথে মানব সমাজ, সংস্কৃতি এবং সাহিত্যের গভীর উপলব্ধি গড়ে তোলাই এর লক্ষ্য।

ক্যাম্পাস এবং সুবিধাঃ

মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসটি প্রায় 54 একর জুড়ে বিস্তৃত এবং একটি অনুকূল শিক্ষার পরিবেশের সুবিধার্থে আধুনিক সুযোগ-সুবিধা দিয়ে সজ্জিত। ক্যাম্পাসে রয়েছে একাডেমিক

ভবন, সুসজ্জিত পরীক্ষাগার, একটি কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার, প্রশাসনিক অফিস, একটি অডিটোরিয়াম এবং ছাত্র ছাত্রাবাস।

এমবিএসটিইউ-এর কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারে বই, গবেষণাপত্র, জার্নাল এবং ইলেকট্রনিক সম্পদের একটি বিস্তৃত সংগ্রহ রয়েছে, যা শিক্ষার্থীদের এবং শিক্ষকদের প্রচুর একাডেমিক

See also  ক্রিকেট নিয়ে ফেসবুক স্ট্যাটাস ক্যাপশন উক্তি এবং কবিতা

তথ্যের অ্যাক্সেস প্রদান করে। লাইব্রেরির কম্পিউটারাইজড সিস্টেম দক্ষ গবেষণা এবং অধ্যয়নের জন্য অনুমতি দেয়।

গবেষণা এবং উদ্ভাবনঃ

এমবিএসটিইউ গবেষণা এবং উদ্ভাবনের উপর খুব জোর দেয়। এটি ফ্যাকাল্টি সদস্য এবং ছাত্রদের গবেষণা কার্যক্রমে নিয়োজিত হতে উৎসাহিত করে এবং

সহায়তা প্রদান করে। বুদ্ধিবৃত্তিক বক্তৃতা, জ্ঞান বিনিময়, এবং আন্তঃবিভাগীয় সহযোগিতার প্রচারের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় নিয়মিত সেমিনার, কর্মশালা এবং সম্মেলনের

আয়োজন করে।

পাঠক্রম বহির্ভূত কার্যক্রমঃ

MBSTU সামগ্রিক উন্নয়নের গুরুত্ব স্বীকার করে এবং শিক্ষার্থীদের পাঠক্রম বহির্ভূত কার্যকলাপে অংশগ্রহণ করতে উৎসাহিত করে। বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, বিতর্ক

খেলাধুলা এবং বিভিন্ন ক্লাব এবং সমিতি রয়েছে। এই ক্রিয়াকলাপগুলি শিক্ষার্থীদের সামগ্রিক বৃদ্ধি, নেতৃত্বের বিকাশ এবং সামাজিক ব্যস্ততায় অবদান রাখে।

সহযোগিতা এবং অংশীদারিত্বঃ

যৌথ গবেষণা প্রকল্প, এবং জ্ঞান অর্জনের জন্য নেওয়ার জন্য বিখ্যাত জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান, শিল্প এবং গবেষণা সংস্থাগুলির সাথে

সক্রিয়ভাবে সহযোগিতা করে। এই সহযোগিতাগুলি ধারণার আদান-প্রদান, বিভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গির এক্সপোজার এবং উন্নত সংস্থান এবং দক্ষতার অ্যাক্সেসকে সহজতর করে।

উপসংহারে বলা যায়ঃ

 এটি বাংলাদেশের একটি মর্যাদাপূর্ণ প্রতিষ্ঠান যা বিজ্ঞান, প্রকৌশল, প্রযুক্তি, ব্যবসায়িক অধ্যয়ন এবং মানবিক বিষয়ে বিভিন্ন ধরনের প্রোগ্রাম করে।

গবেষণা এবং সামগ্রিক উন্নয়নের প্রতিশ্রুতির সাথে, MBSTU দক্ষ পেশাদার তৈরিতে এবং বাংলাদেশের অগ্রগতিতে অবদান রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

  ভিউয়ার্স বন্ধুরা কেমন লাগলো আমাদের আজকের এই ব্লগটি যদি ভালো লাগে, তাহলে আপনাদের  কাছের মানুষদের সাথে শেয়ার করবেন, ধন্যবাদ।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top