Responsive Menu
Add more content here...

চট্টগ্রামে ট্রেনের অগ্রিম টিকিটের যাত্রী পরিবহণ শুরু

চট্টগ্রামে ট্রেনের অগ্রিম টিকিটের যাত্রী পরিবহণ শুরু

ইসলাম ধর্মালম্বীদের কাছে প্রধান দুটি উৎসব হচ্ছে ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আযহা। ঈদুল ফিতর রোজার

ঈদ এবং ঈদুল আযহা কোরবানির ঈদ নামে সকলের কাছে পরিচিত। মুসলিমদের কাছে ঈদ মানে

অন্যতম আনন্দ উচ্ছ্বাসের অনুষ্ঠান। প্রতিটি মুসলমানই এই আনন্দ উৎসব পরিবারের সকলের সাথে

একসাথে পালন করতে চায়। তাই যে যেখানেই জীবিকার জন্য কর্মরত অবস্থায় থাকুক না কেন ঈদের

মৌসুমে নিজ পরিবারে ফিরে যাওয়ার কথা সকলের মনেই আসে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে সকলেই বাস

ট্রেন স্টেশনে ভিড় জমায় নিজ বাড়ি ফেরার তাগিদে।

এ বছর কোরবানি ঈদ উপলক্ষে চট্টগ্রামে ট্রেনের অগ্রিম টিকিটের যাত্রী পরিবহণ শুরু হয়েছে। শনিবার,

ঈদ যাত্রার প্রথম দিন সকাল থেকে ১০টি আন্তঃনগর ট্রেন গন্তেব্যের উদ্দেশে ছেড়ে যায়। এর মধ্যে

‘সোনার বাংলা ঈদ স্পেশাল’ নামে একটি ট্রেন এবং ৪টি মেইল ট্রেনও রয়েছে।

Read More: জেলা পরিষদ কার্যালয় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২৩।

চট্টগ্রাম রেলওয়ে কর্মকর্তার তথ্য অনুযায়ী ২৬ জুন ১০টি আন্তঃনগর, মেইল ও ঈদ স্পেশাল মিলে

মোট ১৭টি ট্রেন চট্টগ্রাম রেলস্টেশন থেকে ছেড়ে যাবে। শনিবার সিডিউল বিপর্যয় ছাড়া ট্রেনগুলো

যথাসময়ে স্টেশন ছেড়ে গেছে। তবে প্রথম দিনে যাত্রী তুলনামূলক কম ছিল। 

রেলওয়ে সূত্রের তথ্য মতে

রেলওয়ে সূত্রের তথ্য মতে, আসন্ন ঈদে চট্টগ্রাম থেকে ১০টি আন্তঃনগর, মেইল ট্রেন এবং স্পেশাল

ট্রেনে অতিরিক্ত বগি যুক্ত করার মাধ্যমে প্রতিদিন ১২ হাজারের মতো টিকিট বিক্রির টার্গেট করা হয়েছে।

শুধু ১০টি আন্তঃনগর ট্রেনের সাড়ে ৭ হাজার টিকিট এরই মধ্যেই অনলাইনে বিক্রি করা সম্পন্ন হয়েছে। 

শুধু এটাই নয় অন্যান্য স্পেশাল ট্রেনের টিকিটও অনলাইনে বিক্রি করা হয়েছে। মেইল ট্রেনের টিকিট

বিক্রি করা হচ্ছে রেল স্টেশনের কাউন্টারে। এবার ঈদে ঘরমুখী যাত্রীদের সুবিধার্থে শোভন শ্রেণির

See also  ইসরাইল এবং ফিলিস্তিন যুদ্ধে - কোন দেশ কার পক্ষে আছে।

(নন এসি) মোট ২৫ শতাংশ আসনবিহীন টিকিট কাউন্টারে বিক্রি করা হচ্ছে।

ঈদে নাড়ির টানে ধীরে ধীরে নগরী ছাড়তে শুরু করেছেন ঘরমুখী যাত্রাকারি মানুষ। অগ্রিম টিকিট

সংগ্রহ করা ট্রেন যাত্রীরা স্বস্তিতে যাত্রা করতে পারলেও বাস যাত্রীদের পড়তে হচ্ছে নানা ঝক্কি-ঝামেলায়।

ঈদের জন্য বিভিন্ন গন্তব্যের ভাড়া বৃদ্ধি করেছে পরিবহণ কোম্পানিগুলো। এতে করে ভোগান্তি

বেড়েছে সাধারণ জনগণের। শনিবার চট্টগ্রাম রেলস্টেশন ও কয়েকটি বাস স্টেশনে খবর নিয়ে এমন চিত্র ফুটে উঠেছে।

সংশ্লিষ্টদের তথ্য মতে, এ বছর ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে বেশিরভাগ মানুষ নাড়ির

টানে বাড়ি ফিরে যাচ্ছে। রাজনৈতিক স্থিতিশীলতাসহ পরিবেশ অনুকূলে থাকায় পরিবারের

সঙ্গে ঈদ উদযাপন করতে গ্রামে যাচ্ছেন তারা।

নগরীর বিআরটিসি, কদমতলি, দামপাড়া, অলংকার মোড় ও একেখান মোড়ের বাসস্টেশনে,

সকাল থেকেই স্টেশনে যাত্রীদের ভিড় লক্ষ্য করা যায়। অধিকাংশ যাত্রীই আগাম টিকিট সংগ্রহ

করেছে কিন্তু কেউ কেউ তাৎক্ষণিক স্টেশন বা কাউন্টার থেকে টিকিট নিয়ে যাত্রা শুরু করছেন।

এ ক্ষেত্রে যাত্রীকেঅনেক বিপাকে পড়তে দেখা যায়।

 মো. আবিদুর রহমান (চট্টগ্রাম বিভাগীয় রেলওয়ে ব্যবস্থাপক) যুগান্তরকে জানান, শনিবারের ঈদের অগ্রিম

টিকিটের যাত্রীদের নিয়ে ট্রেনগুলো নিদির্ষ্ট সময়ে গন্তব্যের উদ্দেশ্যে চট্টগ্রাম স্টেশন থেকে ছেড়ে গেছে।

শিডিউলের কোনো ধরণের খন্ডন হয়নি। 

তার দেয়া তথ্য অনুযায়ী, ২৬ জুন ১০টি আন্তঃনগর, মেইল ও ঈদ স্পেশাল মিলে মোট ১৭টি ট্রেন

চট্টগ্রাম রেলস্টেশন থেকে ছেড়ে যাবে। ২৭ ও ২৮ জুন ময়মনসিংহগামী একটি স্পেশালসহ ১৮টি

ট্রেন চট্টগ্রাম স্টেশন থেকে যাত্রীদের নিয়ে যাবে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top