Responsive Menu
Add more content here...

১৫ থেকে ২০ হাজার টাকার মধ্যে ভালো মানের ৫ টি স্মার্টফোন ২০২৩।

আসসালামু আলাইকুম দর্শক। আশা করি সবাই ভাল আছেন। আজকে আমরা আলোচনা করতে যাচ্ছি পাঁচটি এমন ফোন সম্পর্কের যা দামের দিক থেকে তুলনামূলক কম হলেও এদের পারফরমেন্স অনেক ভালো তাহলে কথা না বাড়িয়ে চলুন সেই পাঁচটি স্মার্টফোন সম্পর্কে আলোচনা করা যাক। আশা করি সমস্ত তথ্য পেতে সম্পূর্ণ ব্লগটি পড়বেন।

 যখন কথা উঠে মোবাইল কিনার সম্পর্কে তখন আমাদের মাথায় প্রথমে আসে বাজেটের কথা। বাজেটের কথা মাথায় রেখে আমি আজকে আপনাদের সামনে নিয়ে এসেছি এমন পাঁচটি ফোন যেগুলো সহজেই ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকার মধ্যে এসে যাবে। এই ফোনগুলোতে ক্যামেরা, ডিসপ্লে,ব্যাটারি,চার্জার সহ এমন সকল ফিচারস আছে যেগুলো ফোন গুলোকে আধুনিক করে তুলেছে।

১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা বাজেটের মধ্যে ভালো মানের ফোনের কথা বললে প্রথমেই উঠে আসে:-

 1. Redmi 10 Prime 

 2. Redmi note 11

 3. Realme narzo 50

  4. Infinix hot 20s

  5. Realme 9


Redmi 10 Prime

 এক নম্বরে যে ফোনটি নিয়ে আলোচনা করা হচ্ছে সেটি হচ্ছে সকলের প্রিয় ব্র্যান্ড রেডমি এর Redmi 10 Prime সম্পর্কে।

 ফোনটির 4/64 ভেরিয়েন্টের দাম ধরা হয়েছে আনঅফিশিয়ালি ১৫৫০০ টাকা এবং অফিসিয়ালি ফোনটির মূল্য ১৯৫০০ টাকা।

এই ১৫৫০০ টাকার ফোনটি থেকে আমরা যা পাচ্ছি সেটা হয়তো এতদিন আমাদের কল্পনায় ছিল যা রেডমি বাস্তবে পরিণত করেছে।

ফোনটিতে দেওয়া হয়েছে খুব সুন্দর একটি ডিজাইন। ফোনটির ডিসপ্লে ফুল এইচডি। ফোনটির চিপ সেটের দিকে গেলে আমরা দেখতে পাই ফোনটিতে দেওয়া হয়েছে একটি পাওয়ারফুল গেমিং চিপসেট MediaTek helio G88।

See also  ফোনের গতি বাড়ানোর কিছু সহজ কৌশল।

ফোনটিতে দেওয়া হয়েছে আল্ট্রা হোয়াইট ক্যামেরা সহ 50 megapixel ব্যাক ক্যামেরা। ফোনটিতে থাকছে ৬০০০ মিলি এম্পিয়ার ব্যাটারি।

এছাড়া 18w এর একটি ফাস্ট চার্জারও দেয়া হয়েছে। ফোনটি চার্জ হতে আড়াই ঘন্টার কিছু বেশি সময় নেয়।এক কথায় অল্প প্রাইজ এর মধ্যে আমাদের কল্পনা চিত্র ফুটে উঠেছে এই ফোনটি দ্বারা।

Redmi note 11 

এই লিস্টের দুই নম্বরে যে ফোনটি রয়েছে তাও রেডমি এর, Redmi note 11.এই ফোনটিকে বর্তমানে বাংলাদেশের জাতীয় ফোন বলা চলে।

ফোনটির 4/64 ভেরিয়েন্টের আনঅফিসিয়াল প্রাইস ১৬ হাজার ৫০০ টাকা প্রায়। এবং অফিসিয়ালি 4/64 ফোনটির মূল্য প্রায় ১৯৩০০ শত টাকা।

ফোনটির ডিজাইনটি অনেক আকর্ষণীয়। ফোরটির প্রসেসর একটি শক্তিশালী গেমিং প্রসেসর Snapdragon 680।

যা খুব ভালো গেমিং এক্সপিরিয়েন্স দিতে পারবে। ফোনটিতে রয়েছে চারটি ব্যাক ক্যামেরা, যার মেইন ক্যামেরা 50mp।

ফ্রন্ট ক্যামেরা বা সেলফি ক্যামেরা হিসেবে রয়েছে 13mp এর একটি ক্যামেরা। ফোনটিতে রয়েছে ৫০০০ মিলি এম্পিয়ার ব্যাটারি।

ফোনটির অন্যতম আকর্ষণ 33w এর ফাস্ট চার্জার। এই বাজেটের মধ্যে ফোনটি যথাযথ।

 Realme narzo 50

 লিস্টের পরের ফোনটি রিয়েলমি এর পক্ষ থেকে Realme norzo 50 স্মার্টফোন . ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকার মধ্যে ভালো একটি গেমিং ফোন কিনতে চাইলে realme norzo 50 একটি আদর্শ ফোন। ফোনটির 4/64 ভেরিয়েন্টের আনঅফিসিয়াল প্রাইস ১৫৮০০ টাকা এবং অফিসিয়ালি 4/64 ফোনটির মূল্য ১৭৯৯৯ টাকা। বাজেট বিনিময়ে ফোনটির ডিজাইন অনেক আকর্ষণীয়। প্রসেসর হিসেবে ফোনটিতে দেয়া হয়েছে শক্তিশালী গেমিং প্রসেসর MediaTek helio G96. যেটি এই মুহূর্তে ভাবাই যায় না যে ১৬ হাজার টাকার ফোনটিতে এত শক্তিশালী প্রসেসর দেওয়া হয়েছে। ফোনটির ক্যামেরার দিকে লক্ষ্য করলে দেখা যাবে 50mp ট্রিপল ক্যামেরা। সেলফি ক্যামেরা হিসেবে রয়েছে 13mp ক্যামেরা।ফোনটিতে দেওয়া হয়েছে ৫০০০ মিলি এম্পিয়ার ব্যাটারী এবং 33w এর ফাস্ট চার্জার। বাজেটের মধ্যে এই ফোনটি গেমারদের জন্য পারফেক্ট। 

See also  বিশ্বের সেরা ১০ টি ব্রাউজার (২০২৩)

Infinix hot 20S

 লিস্টের চতুর্থ নম্বরে যে ফোনটি আছে সেটি ইনফিনিক্স এর, Infinix hot 20S স্মার্টফোন . এই ফোনটির 8/128 ভেরিয়েন্টের অফিসিয়াল মূল্য ১৮ হাজার বাংলাদেশী টাকা। এই টাকার মধ্যে আপনারা পেয়ে যাচ্ছেন যথেষ্ট ভালো একটি গেমিং ফোন।ফোনটির ডিজাইন সকলেরই মন কেড়ে নেবে।ফোনটি ডিসপ্লে ৬.৭ ইঞ্চি,প্রসেসর হিসাবে ফোনটিতে আছে MediaTek helio G96. ফোনের পিছনের দিকে আছে 50 mp ক্যামেরা। এবং সেলফি ক্যামেরা হিসেবে রয়েছে 8 mp ক্যামেরা। বাজেট বিবেচনায় ক্যামেরা কোয়ালিটি বলতে গেলে ভালো। ফোনটিতে ৫০০০ মিলি আম্পিয়ার ব্যাটারী এবং 33 w এর ফার্স্ট চার্জার দেয়া হয়েছে।

realme 9

তালিকার 5 নম্বরে রয়েছে realme এর realme 9স্মার্টফোন . ফোনটির 6/64 ভেরিয়েন্টের দাম ২১ হাজার বাংলাদেশী টাকা। ফোনটি ডিসপ্লের সাইজ ৬.৪ ইঞ্চি।ফোনটির ওজন ১৭৮ গ্রাম। ফোনটিতে প্রসেসর হিসেবে দেওয়া হয়েছে Snapdragon 680 প্রসেসর. ফোনটির ব্যাক ক্যামেরা হিসেবে 108 mp ট্রিপল ক্যামেরা দেওয়া হয়েছে।ফোনটির সেলফি ক্যামেরা 16 mp . ফোনটিতে আছে ৫০০০ মিলি অ্যাম্পিয়ার ব্যাটারি এবং 33 w এর ফাস্ট চার্জার। ক্যামেরা কোয়ালিটির জন্য ফোন কিনতে চাইলে এই ফোনটি যথাযথ।

কিছু কথা স্মার্টফোন সম্পর্কেঃ

স্মার্টফোনগুলি আমাদের যোগাযোগ করার, কাজ করার এবং নিজেদেরকে বিনোদন দেওয়ার পদ্ধতিতে বিপ্লব করেছে৷

এই পকেট-আকারের ডিভাইসগুলি আমাদের জীবনের একটি অপরিহার্য অংশ হয়ে উঠেছে,

প্রচুর বৈশিষ্ট্য এবং ক্ষমতা প্রদান করে যা আমাদের দৈনন্দিন কাজগুলিকে আরও দক্ষ এবং আনন্দদায়ক করে তোলে।

শক্তিশালী প্রসেসর এবং পর্যাপ্ত স্টোরেজ সহ, স্মার্টফোন আমাদেরকে তাৎক্ষণিকভাবে তথ্য অ্যাক্সেস করতে এবং কল, টেক্সট এবং সোশ্যাল মিডিয়ার

মাধ্যমে বন্ধু, পরিবার এবং সহকর্মীদের সাথে সংযুক্ত থাকতে সক্ষম করে। উপরন্তু, মেসেজিং অ্যাপস এবং ভিডিও কলিংয়ের উত্থান

বিশ্বজুড়ে মানুষের সাথে সংযোগ স্থাপনকে আগের চেয়ে সহজ করে তুলেছে।

স্মার্টফোনগুলি স্মৃতি ক্যাপচার করার জন্য আমাদের কাছে যাওয়ার ডিভাইসে পরিণত হয়েছে।

উচ্চ-রেজোলিউশন ক্যামেরা দিয়ে সজ্জিত, তারা আমাদের শ্বাসরুদ্ধকর ছবি তুলতে এবং অত্যাশ্চর্য বিস্তারিতভাবে ভিডিও রেকর্ড করার অনুমতি দেয়।

See also  শীর্ষ ১০ টি ডেস্কটপ সফ্টওয়্যার যা থাকা অনেক জরুরী।

আমরা বিভিন্ন সামাজিক মিডিয়া প্ল্যাটফর্মে বন্ধু এবং অনুগামীদের সাথে এই মুহূর্তগুলি অবিলম্বে ভাগ করতে পারি, সংযোগ এবং ব্যস্ততার অনুভূতি তৈরি করতে পারি।

সময়ঃ

অধিকন্তু, স্মার্টফোনগুলি উত্পাদনশীলতার পাওয়ার হাউসে পরিণত হয়েছে, যা আমাদের সময়সূচী, ইমেল এবং নথিগুলিকে চলতে চলতে আমাদের সহায়তা করে

এমন বিভিন্ন অ্যাপ এবং সরঞ্জাম সরবরাহ করে। মোবাইল ব্যাঙ্কিং থেকে কেনাকাটা, বই পড়া থেকে শুরু করে সিনেমা এবং মিউজিক স্ট্রিমিং, স্মার্টফোন বহুমুখী ডিভাইসে পরিণত হয়েছে যা আমাদের বিভিন্ন চাহিদা পূরণ করে।

প্রযুক্তির উন্নতির সাথে সাথে স্মার্টফোনগুলি আরও স্মার্ট হয়ে উঠছে, মুখের স্বীকৃতি, বর্ধিত বাস্তবতা এবং কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার মতো বৈশিষ্ট্যগুলিকে অন্তর্ভুক্ত করছে৷

এই অগ্রগতিগুলি সুরক্ষা, গেমিং অভিজ্ঞতা এবং ব্যবহারকারীর মিথস্ক্রিয়াকে উন্নত করে, যা একটি স্মার্টফোন কী করতে পারে তার সীমানা ঠেলে দেয়।

স্মার্টফোনগুলি যোগাযোগ, বিনোদন এবং উত্পাদনশীলতাকে একক, বহনযোগ্য ডিভাইসে একত্রিত করে আমাদের জীবনকে রূপান্তরিত করেছে।

তাদের ক্রমবর্ধমান ক্ষমতা এবং সুবিধা আধুনিক বিশ্বে নেভিগেট করার জন্য একটি অপরিহার্য হাতিয়ার করে তোলে।

পরিশেষে

আজকে আমরা ব্লগটির মাধ্যমে জানতে পারলাম ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকার মধ্যে এমন পাঁচটি ফোন যেগুলো দেখতে আকর্ষণীয় এবং স্ট্যান্ডার্ড মানের। তাই যারা ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকার মধ্যে স্মার্টফোন কিনতে চান তাহলে এই পাঁচটির যেকোনো একটি আপনার জন্য উত্তম। আশা করা যায় আজকের ব্লগটির মাধ্যমে তোমাদের কিছুটা হলেও উপকার হয়েছে। ব্লগটি শেষ পর্যন্ত পড়ার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top